সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের ফলে সারাদেশে দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন মামলাসমূহ দ্রুততার সঙ্গে নিষ্পত্তি হচ্ছে। দ্রুতবিচার আইনে দায়েরকৃত চাঞ্চল্যকর মামলাসমূহ তদারকির জন্য আইন ও বিচার বিভাগের একটি মনিটরিং টিম কাজ করছে।

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তর পর্বে বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য মোশাররফ হোসেনের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী এ্যাডভোকেট আনিসুল হক।

মন্ত্রী জানান, দেশে আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুতবিচার) আইন-২০০২ এর আওতায় ২০১৯ সালের ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত বিচারাধীন মামলার মোট সংখ্যা ৩ হাজার ১০৩টি। ইতোমধ্যে ঢাকায় বিচারাধীন মামলার সংখ্যা এক হাজার ৯৮৯টি। তিনি জানান, দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে মামলাসমূহ দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য আইন ও বিচার বিভাগ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ইতোমধ্যে উক্ত আদালতসমূহে বিচারক নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

মন্ত্রী আনিসুল হক আরও জানান, আদালতসমূহে এরূপ মামলা গুরুত্ব সহকারে দ্রুততার সঙ্গে নিষ্পত্তি করছে। পুরনো মামলাগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিষ্পত্তির লক্ষ্যে সলিসিটরের নেতৃত্বে মনিটরিং সেল কাজ করছে। মনিটরিং সেল গঠিত হওয়ার পর থেকে দেশের বৃহত্তর জেলাগুলোতে পর্যায়ক্রমে ৫-১০ বছর এবং ১০ বছরের অধিক সময়ের পুরনো ফৌজদারি মামলাসমূহ দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হচ্ছে এবং মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে সুপারিশমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে। সারাদেশের প্রতি জেলায় কেস ম্যানেজমেন্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে।